.
Published: Tue, Dec 24, 2019 9:05 AM
Updated: Tue, Jul 7, 2020 12:14 AM


বিয়েতে কেমন পোশাক পরবেন কনে?

বিয়েতে কেমন পোশাক পরবেন কনে?

বিয়ে মানে দুটি মানুষের নতুন জীবনের শুরু। বিয়ের দিনটিতে কনে থাকেন সব আয়োজনের মধ্যমণি। আর সারা বছর ধরে কনে তাঁর বিয়ের পোশাক নিয়ে চিন্তা ভাবনা করে থাকেন। প্রতিটি মেয়েই এই দিন নিজেকে নিখুঁত এবং সবচেয়ে সুন্দর রূপে রূপে দেখতে চান। আর বিয়েতে সবার নজর থাকে কনের সাজপোশাকের দিকে। কনে কী পোশাক পরল, রং-নকশা কেমন, পোশাকের সঙ্গে মেকআপ ও গহনা ওড়নাটা মানাল কিনা- কোনো কিছুই বাদ যায় না! তাই বিয়ের সাজপোশাক হওয়া চাই নজরকাড়া, নান্দনিক আর ঐতিহ্যবাহী।

থিম-ভিত্তিক সাজের চল এখন। তাই পোশাকের রং আর ধরন নির্বাচন করা হয় অনুষ্ঠানের ধরন অনুযায়ী। সময়ের পালাবদলে বর্তমানে বিয়ের ফ্যাশনেও এসেছে আমূল পরিবর্তন। বর্তমানে বিয়ের অনুষ্ঠান মানেই সাজসজ্জা আর পোশাক-আশাকে আভিজাত্য প্রকাশ।

বিয়েতে শাড়ি পড়বেন নাকি লেহেঙ্গা? কি রঙের হলে ভালো হয়? দ্বিধায় পড়ে গেছেন কোন রং পড়বেন ভেবে? চলুন জেনে নিই বিয়েতে কোন সাজপোশাক এবং কোন কোন রং পড়তে পারেন।

শাড়ি

বাংলাদেশের মেয়েদের বিয়ের পোশাক হিসেবে পছন্দের তালিকায় প্রথমেই থাকে শাড়ি। ঐতিহ্যগত ভাবে বছরের পর বছর ধরে শাড়ি পড়েই বিয়ের পিঁড়িতে বসে আসছেন বাংলাদেশের মেয়েরা। বিয়েতে লেহেঙ্গা, ঘাগড়া বা গাউন পরা হলেও শাড়ির আবেদনটাই অন্যরকম। বাংলাদেশী বিয়ের শাড়ির অনেক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। তাই বেছে নেয়ার জন্য বৈচিত্র্যের অভাব কখনোই হবে না।

বিয়েতে কনের জন্য লাল, সাদা, নীল, মেরুন, ভারী কাজের শিফন, জামদানি, বেনারসি, কাতান, সিল্ক, জজের্ট, কাঞ্জিভরম ইত্যাদি ছাড়াও শাড়িতে আরো অনেক অপশন থাকে। তাই যে ধরনের শাড়িতে আপনাকে সুন্দর দেখাবে, তা’ই বেছে নিতে পারবেন। শাড়ির মধ্যে কমলা বা সবুজ রঙের শাড়িও রাখতে পারেন। বিয়ের শাড়ির সঙ্গে অতিরিক্ত দুটি সুতি বা হাফ সিল্কের শাড়ি রাখতে পারেন।

আপনি কিছুটা খাটো হয়ে থাকলে পড়তে পারেন লম্বা পাড়ের শাড়ি, উচ্চতা বেশি হয়ে থাকলে পড়ুন সরু পাড়ের শাড়ি। গায়ের রঙ কিছুটা চাঁপা হলে হালকা রঙের শাড়ি পড়ুন, এবং উজ্জ্বল হয়ে থাকলে পড়ুন গাঢ় রঙের শাড়ি।

শাড়ি কেনার সময় প্রথমেই গুরুত্ব দিতে হবে ফেব্রিকের ওপর। বেনারসির ক্ষেত্রে কাপড় মোলায়েম দেখে শাড়ি বাছাই করতে হবে। দীর্ঘ সময় বউকে এই শাড়িতে থাকতে হয়, তাই এটা আরামদায়ক না হলে, সারাক্ষণ অস্বস্তি ও কষ্ট হবে। 

লেহেঙ্গা

বর্তমান সময়ের মেয়েরা যথেষ্ঠ গ্ল্যামার সচেতন। তাইতো হালের ট্রেন্ড অনুসরন করে অনেকেই আজকাল বেছে নিচ্ছেন বাহারি রঙ এবং ডিজাইনের লেহেঙ্গা। লেহেঙ্গা বেশ স্টাইলিশ এবং দেখতে বেশ ভালো লাগে। ব্লাউজের সঙ্গে স্কার্টের কম্বিনেশন বেশ অসাধারণ। লেহেঙ্গাও অনেক ধরনের হয়। লেহেঙ্গার গায়ে অনেক ধরনের কারুকাজ করা থাকে তাই ভারি গহনার প্রয়োজনীয়তা অনেকাংশেই কমে আসে।

বাজারে এখন বিভিন্ন নিত্যনতুন ডিজাইনের লেহেঙ্গার কালেকশন পাওয়া যায়। সিল্ক কাউচার লেহেঙ্গা এবং ব্লাউজ দারুণ একটি কম্বিনেশন। একটি ভারী এমব্রয়ডারি করা সিল্ক স্কার্ট এবং একটি ছোট শাড়ি ব্লাউজের ডিজাইনিং চোলি দারুণ মানানসই। আনারকলি লেহেঙ্গা অনেকেই সব সময়ের জন্য পছন্দের তালিকায় রাখেন। শুধু বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে না যেকোনো পার্টি অথবা যেকোনো অনুষ্ঠানের জন্য পারফেক্ট। আনারকলি স্টাইলের লং সিল্কের কুর্তার সঙ্গে লেহেঙ্গা স্কার্ট দারুণ কম্বিনেশন।

বিয়ের সাজে একটু ট্র্যাডিশনাল রাখতে চাইলে শাড়ি স্টাইলে লেহেঙ্গা চয়েস করতে পারেন। মটকা সিল্কের লেহেঙ্গা শাড়ি বর্তমানে বেশ জনপ্রিয়। এতে লেহেঙ্গার সঙ্গে থাকে লম্বা হাতার ডিজাইনার ব্লাউজ। লাল রঙের শাড়ি স্টাইলের লেহেঙ্গা যেকোনো বিয়ের কনের সাজ ব্রাইট করে তোলে আর দেখতেও অসাধারণ লাগে।

ভারী কারুকার্যসহ গোল্ড রঙের লেহেঙ্গা কনের লুক অনেক গর্জিয়াস করে তুলবে। যেহেতু বিয়ের দিন, তাই ভারী কিছু পরতেই পারেন। একটু ভারী লেহেঙ্গা, তাতে থাকবে এমব্রয়ডারি ভারী কারুকার্য। বিয়ের জন্য একদম পারফেক্ট।

যারা ক্রপ পোশাকে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন, তারা ক্রপ টপ চোলি উইথ অফ স্লিভ- এ ধরনের লেহেঙ্গাটি বেছে নিতে পারেন। স্টাইলিশ তো বটেই পাশাপাশি বেশ ফ্যাশনেবল।

লেহেঙ্গার সব থেকে বড় সুবিধা হচ্ছে, শাড়ির মত লেহেঙ্গা সামলানো অত কঠিন নয়। এই পোশাকটি তিনটি অংশে বিভক্ত, তাই বেশ সহজেই সামলে নেয়া যায়। লম্বা সময় ধরে চলা বিয়ের অনুষ্ঠানগুলোয় কনেরা বেছে নিতেই পারেন লেহেঙ্গা। একদমই অস্বস্তি লাগবে না, এবং বেশ আরামদায়কভাবেই পুরো অনুষ্ঠান পার করে দেয়া যাবে। তবে আপনার দেহের গড়ন যদি কিছুটা স্থুল হয়ে থাকে, তাহলে লেহেঙ্গার বদলে শাড়ি পড়লেই ভালো হবে।

ওড়না

কনের পোশাক যা-ই হোক, বিয়েতে ওড়না থাকা চাই-ই চাই। এক সময় লাল ওড়না ব্যবহার করা হলেও ফ্যাশন বিশেষজ্ঞদের কল্যাণে পোশাকের সঙ্গে ওড়নায় লেগেছে বদলের হাওয়া। নকশি কাঁথার সেলাই, রংতুলির ছোঁয়ায় ওড়না এখন কনের আভিজাত্যকেই তুলে ধরে। মসলিন, টিস্যু, অরগান্ডা সিল্ক, পিওর সিল্কের ওড়নাই বেশি প্রচলিত। শাড়ির সঙ্গে মিলিয়ে ডিজাইন হচ্ছে ওড়না। মেরুন, ফিরোজা, সোনালি, নীল, অফহোয়াইট, ক্রিম, সবুজ, ম্যাজেন্টা, গোলাপিসহ পোশাকের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ সব রংই পাবেন বিয়ের ওড়নায়।

জুতা

বিয়ের অনুষ্ঠানে সাজসজ্জা ও পোশাকের পাশাপাশি আরেকটি বিষয়ে যথেষ্ট খেয়াল রাখতে হয়। আর তা হলো জুতা। কনের জুতা হতে হবে অনুষ্ঠানের উপযোগী। অনেক জুতা আছে যা খুব কষ্ট করে পরতে হয়। বিয়েতে এমন জুতা পরবেন না। এতে সহজেই পায়ে দাগ পড়ে যেতে পারে। শাড়ি বা লেহেঙ্গার সঙ্গে উঁচু হিল পরতে পারেন। ফ্ল্যাট স্যান্ডেল শাড়ির সঙ্গে মানানসই হবে না।

পোশাকের সঙ্গে আনুষঙ্গিক

বিয়ের কনের জন্য সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় ক্লাচ ব্যাগ। শাড়ি বা লেহেঙ্গার সঙ্গে মিলিয়ে, আবার মাঝেমধ্যে বিপরীত রঙে, নকশা করেও কিনতে পারেন ক্লাচ ব্যাগ।

কখন কি পরবেন?

গায়ে হলুদ, মেহেদি, বিয়ে আর বৌভাত। চার ধরনের অনুষ্ঠানের সাজ পোশাকটাও হতে হবে চার রকম। এবার জেনে নিন কোন অনুষ্ঠানে কি পরবেন। 

একটা সময় ছিল যখন হলুদ শাড়ি লাল পাড় ছিল হলুদের অনুষ্ঠানের প্রধান পোশাক। আর ছিল গাঁদা ফুলের গহনা। সময় বদলেছে। বদলেছে পোশাকের ধরন আর সাজ। তবে হলুদ রঙের চলটা একেবারে চলে যায়নি। হলুদ ছাড়াও যে কোনো আকর্ষণীয় উজ্জ্বল রঙ, যেমন, ম্যাজেন্টা বা টিয়া সবুজ রঙও অনেক নান্দনিক লাগতে পারে। এ ধরনের অনুষ্ঠানে কাতান, জামদানি শাড়ি অথবা হালফ্যাশনের সালোয়ার কামিজ পরতে পারেন।

অনেকেই এখন মেহেদি অনুষ্ঠান করে আলাদা করে। শাড়ির চেয়ে জমকালো সালোয়ার কামিজই ভালো এ ধরনের আয়োজনে। মেহেদির জন্য সবারই পছন্দ জলপাই সবুজ ও গাঢ় সবুজ।

বিয়ে বা বৌভাতে এখন জমকালো এবং হালকা দুই ধরনের সাজ পোশাকই চলে। কাতান, জামদানি, জর্জেট, তসর, সিল্ক বা কারুকাজ করা শাড়ি বা সালোয়ার কামিজ যেমনটা ইচ্ছা পরা যায় এখন। বিয়ে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠান, এ দিনের পোশাকের রঙ মূলত পুরোটাই বর-কনের পছন্দের ওপর নির্ভর করে।

বেশির ভাগই বেছে নেন মেরুন বা কনেদের ঐতিহ্যবাহী যে কোনো উজ্জ্বল লাল রঙ। অনেকেই এখন হিজাব ব্যবহার করে। অবশ্যই পোশাকের সাথে মিলিয়ে হিজাব পরতে হবে। নিজেকে সুন্দর করে সাজিয়ে তুলতে গিয়ে খেয়াল রাখতে হবে সাজ পোশাক যেন চেহারা এবং পোশাকের সাথে মানানসই হয়।

বিয়ে সংক্রান্ত যেকোনো সেবা অথবা পরামর্শ পেতে যোগাযোগ করুন তাসলিমা ম্যারেজ মিডিয়ার সাথে। কল করুনঃ 01972006695 অথবা 01972006691 এ। আমাদের মেইল করতে পারেনঃ taslima55bd@gmail.com এ


Register now to talk with your life parner.   Do you have account?   Login  
Categories: Bride,
Tags: marriage, wedding, wedding dress, #BD marriage, bride
Division: Dhaka
District: Dhaka
Thana: Uttara
This post read 825 times.
Taslima Marriage Media Blog


Our Website & Blog Visitors

Suggested Posts