1/5 - (1 vote)

কারো প্রেমে পড়লে ‘থ্রি ম্যাজিক্যাল ওয়ার্ডস’ উচ্চারণটাই কেবল বাকি থাকে। ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি’ বা ‘আই লাভ ইউ’ কথাটি যতই বলা হোক না কেন, এর আবেদন কখনো ফুরায় না। ভালোবাসা এমন জিনিস যাকে মনের মধ্যে লুকিয়ে রাখতে নেই। একে সবসময় প্রকাশ করা উচিত। তবে সবসময় ’আমি তোমাকে ভালোবাসি’ না বলেও ভালোবাসা প্রকাশ করা যায়। কিভাবে? আজকে আমরা সেটাই জানবো।

জ্ঞানীরা বলেন, সঙ্গীর কাছে ভালোবাসা প্রকাশের সময় আবেগের চেয়ে বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দেওয়া ভালো। আর ভালোবাসা প্রকাশের বিষেয়ে সাবলিল হওয়া খুবই জরুরি। পরিবেশ ও পরিস্থিতির বিচারে অনেকেই ‘আই লাভ ইউ’ শব্দটি বলতে পারেন না। খুব সহজ কিছু বিষয় আপনার ভালোবাসাকে প্রকাশ করতে যথেষ্ট। তবে এই কথাটি মুখে না বলেও ভালোলাগা বা ভালোবাসা প্রকাশের কিছু বুদ্ধিদীপ্ত উপায় জেনে নিন।

১. যাকে ’ভালোবাসি’ বলেছেন তার প্রশংসা করতে ভুলবেন না

আপনার সঙ্গী আপনার জন্য অনেক কিছুই তো করছে। আপনি কি তাঁর প্রশংসা করছেন? যাকে আপনি ভালোবাসেন তার প্রশংসা করতে ভুলে যাবেন না। আপনি যাকে ভালোবাসেন তার সব সুন্দর বিষয় আপনার চোখেই বেশি ধরা পড়বে। তাই আপনার বন্ধু-বান্ধব ও পরিবারের লোকজনের সামনে যাকে ভালোবাসি বলেছেন তার প্রশংসা করুন। আপনার জীবনকে সুন্দর করে তোলার জন্য সঙ্গীকে ধন্যবাদ দিন। এতে আপনার সঙ্গী বুঝতে পারবে আপনি তাকে কতটা ভালোবাসেন। প্রশংসা করার সময় অবশ্যই করতে বিনয়ী ও কোমল বাক্য ব্যবহার করুন, যা সত্যি তাই বলুন, অতিরঞ্জিত কিছু বলবেন না।

২. অনুভূতিগুলো প্রকাশ করুন

বেশীরভাগ মানুষই মনে করেন প্রিয়জন তার সকল অনুভূতি সম্পর্কে জানেন। কিন্তু অনেক সময়ই দেখা যায় অপনার প্রিয়জন আপনার অনুভূতি সম্পর্কে জ্ঞাত নন। তাই প্রিয়জনের সামনে আপনার ভেতরের অনুভূতিগুলিকে প্রকাশ করুন। যেমন আপনার সঙ্গীকে আপনি যদি সত্যিই মিস করেন, তাহলে তাকে সরাসরি বলুন। যদি কখনও এমনও মনে হয় যে এই মুহূর্তে সঙ্গী পাশে থাকলে ভালো হত তাহলে সেটাও অবশ্যই বলুন। অনুভূতি প্রকাশে মাধ্যমেই আপনি ভালোবাসা প্রকাশ করতে পারেন এবং সম্পর্ককে আজীবনের জন্য টিকিয়ে রাখতে পারবেন। শব্দে শব্দে ভালোবাসার কথা বললে দেখবেন মানুষটি আপনার প্রতি মুগ্ধ হবে। তবে মিথ্যে অনুভূতি একদমই প্রকাশ করবেন না।

আদর্শ জীবনসঙ্গী খুঁজতে

৩. যাকে ’ভালোবাসি’ বলেছেন তার সাথে সুন্দর সময় কাটান  

ব্যস্ত জীবনে পরস্পরেকে সময় না দেয়ার কারণে ভেঙে যায় অনেক সুন্দর সম্পর্ক। তাই যাকে ভালোবাসি বলেছেন তাকে সময় দেয়া এবং তার সঙ্গে সময় কাটানোও ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ। এতে সম্পর্ক আরো মজবুত হয়ে ওঠে। যদি পড়াশুনা বা কাজের চাপ থাকে তাহলে তার মধ্যেও দুজনেকে সময় বের করতে হবে। একসঙ্গে খাবার খাওয়া বা একসঙ্গে কোথাও ঘুরতে বের হওয়া হতে পারে ভালোবাসার অনন্য প্রকাশ। বিয়ের অনেক দিন পরও সম্পর্ক যতই পুরোনো হোক না কেন একান্তে নিজস্ব কিছু সময়ের প্রয়োজন সবসময়েই থাকে। একান্তে দুজনে বসে খানিকক্ষণ গল্প করলে মানসিক দূরত্ব কমে, দূরে সরে যায় মান-অভিমান। এই অভ্যাসটি নিয়মিত ধরে রাখলে দেখবেন কখনোই ঝগড়া হবে না।

আপনি যদি দূরে থাকেন তাহলেও কিন্তু প্রিয়জনের পাশে থাকতে পারেন। কিভাবে? সঙ্গীকে ফোন করুন অথবা ভিডিও কলে কথা বলুন, দেখবেন ভালোবাসার মানুষটির ভালো লাগবে।

৪. যাকে ’ভালোবাসি’ বলেছেন তার প্রতি যত্নবান হোন

ভালোবাসার মানেই হলো একে অন্যের প্রতি যত্নশীল ও দায়িত্ববান হওয়া। ব্যস্ত শিডিউলের মধ্যে বা দূরে থাকলেও যদি ভালোবাসার মানুষটির একটু খোঁজ-খবর নেন তাহলে তাদের প্রতি যত্নশীলতার দিকটি যেমন প্রকাশ পায় তেমনই সম্পর্কের বন্ধন ও অটুট হয়। এছাড়া বিশ্বাস ও ভরসা একটি সম্পর্ককে মধুর করে তুলতে পারে। বিশ্বাস ও ভরসার রাখতে পারলেই আপনি দেখতে পাবেন দূরে থেকে কী ভাবে একটা সম্পর্ক ঠিক রাখা যায়। সম্পর্কে সবসময় একটি বিষয় নিয়ে পড়ে থাকবেন না। সঙ্গীর মন খারাপ থাকলে তার মনটা ভালো করে দেওয়ার চেষ্টা করুন।

৫. যাকে ’ভালোবাসি’ বলেছেন তাকে আলিঙ্গন করুন, হাত ধরুন

সম্পর্ককে তরতাজা রাখতে ভালোবাসার মানুষটিকে আলিঙ্গন করা কিংবা হাত ধরার কোনও তুলনা নেই। ভালোবাসার মানুষকে জড়িয়ে ধরার মধ্য দিয়ে ভালোবাসা প্রকাশ করা যায়। জীবনের কঠিন সময়গুলোতেও যাকে ভালোবাসি বলেছেন তার হাতটি শক্ত করে ধরে রাখুন সবসময়। হঠাৎ করে জড়িয়ে ধরা কিংবা একটা চুম্বন বদলে দিতে পারে সম্পর্কের মানে। এই আলিঙ্গনেই জমে উঠে সম্পর্ক। সঙ্গীর সাথে কথা বলার সময় চোখের দিকে তাকিয়ে কথা বলার চেষ্টা করুন। সম্পর্ক যত পুরোনোই হোক না কেন এই অভ্যাস গুলো ধরে রাখুন।

৬. ভালোবাসার মানুষটিকে উপহার দিন

ভালোবাসার মানুষটিকে বিশেষ দিনগুলোতে উপহার দেয়ার মধ্য দিয়ে ভালোবাসা প্রকাশ করতে পারেন। তিনি যদি বইপ্রেমী হয়ে থাকেন তাহলে তার পছন্দের লেখকের বই উপহার দিয়ে চমকে দিতে পারেন তাকে। এছাড়া উপহার হিসেবে বেছে নিতে পারেন টেডি, শোপিস, হার্ট, পেন্ডেন্ট, আংটি, ইত্যাদি। বিশেষ দিনে যেমন ভালোবাসা দিবস বা তার জন্মদিনে নিজে কার্ড তৈরি করে সুন্দর উপহার তৈরি করতে পারেন। মাঝে মধ্যে সারপ্রাইজ পার্টির আয়োজন করুন প্রিয়জনের জন্য। আর সেখানে আপনার প্রিয়জনকে সবার সামনে জানান আপনার ভালো লাগার কথাটি।

৭. পছন্দের রান্না করুন

কোনো বিশেষ দিনের অপেক্ষা না করে মাঝে মধ্যেই হুটহাট করে সঙ্গীর পছন্দের খাবার রান্না করে ফেলুন। সারপ্রাইজ পেতে কার না ভালো লাগে বলুন? খাবার টেবিলে পছন্দের খাবার অথবা তার টিফিন বক্সে পছন্দের খাবার দিয়ে তাকে সারপ্রাইজ দিন। খাবারটি যদি রেস্টুন্টের মত নাও হয় ভালোবাসায় যে কোনো ঘাটতি নেই, সেটা আন্দাজ করতে ভালোবাসার মানুষটির দেরি হবে না। পাশাপাশি মজার কিছু লিখে বা চিরকুটে রোমান্টিক ম্যাসেজও লিখে দিতে পারেন।

৮. ঘরের কাজগুলো ভাগ করে নিন

একসঙ্গে ঘরের কাজ করার মধ্য দিয়ে পরস্পরকে জানা ও বোঝা সম্ভব। সঙ্গী ঘরের যেসব জায়গায় প্রতিদিন কাজ করে থাকেন সেসব জায়গায় ছোট চিরকুট লিখে রাখার মাধ্যমে আপনার ভালোবাসা প্রকাশ করতে পারেন। সঙ্গী যদি কখনও খুব ক্লান্ত বা ব্যস্ত থাকে তাহলে তার কোনো একটি কাজ করে দিয়ে সাহায্য করুন। মাঝেমধ্যে সঙ্গীর সাথে একসঙ্গে বাড়ি ফিরতে পারেন। সঙ্গী যদি কোনো ভালো কাজ করেন, তাহলে অবশ্যই তাকে উৎসাহ দিন। সব বিষয়ে আপনার উৎসাহ পেলে সে আপনার কাছে অন্য রকম স্বস্তি অনুভব করবে। আর আপনার ভালোবাসাও তার কাছে ধরা পড়বে। প্রশংসা করতে না পারলে চুপ থাকবেন, কিন্তু নিন্দা করবেন না।

৯. রোমান্টিক টেক্সট, ফেসবুক ম্যাসেজ

ভালোবাসার প্রথম দিকে তো দিনে প্রচুর টেক্সট আর ফেসবুকে ম্যাসেজ করতেন! সম্পর্কের বয়স হওয়ার সাথে সাথে সেগুলো বন্ধ করে না দিয়ে মোবাইলে রোমান্টিক টেক্সট বা ফেসবুক ম্যাসেজ পাঠাতে থাকুন সব সময়েই। তাহলে দেখেবেন নিজেদের মধ্যে কোনও দূরত্ব সৃষ্টি হবে না। জন্মদিন, অ্যানিভার্সারি এসব বিশেষ দিনগুলোতে ভালোবাসার মোড়া ম্যাসেজ পাঠান। উপহার দিতে পারলে আরও ভালো।

১০. সমস্যার কথা খুলে বলুন

নিজেরা যদি কোনো সমস্যার মধ্যে থাকেন তাহলে তা চেপে রাখবেন না, মন খুলে কথা বলুন। এতে উভয়েরই ভালো লাগবে। আপনি যদি কখনও কোনও ভুল করে থাকেন, তাহলে তাকে অবশ্যই সরি বলুন। ভালোবাসার মানুষটির অনুভূতি বোঝার চেষ্টা করুন। মানুষটি যদি কথা বলতে ভালোবাসেন বা নিজের অনুভূতিগুলো অকপটে শেয়ার করেন তাহলে তাকে বলার সুযোগ দিন। বিরক্তি প্রকাশ না করে মন দিয়ে তার কথাগুলো শুনুন। এতে তার আপনার প্রতি ভালোবাসা বাড়বে।

সবশেষে একটাই কথা

ভালো লাগা থেকেই ভালোবাসার সৃষ্টি। তাই দেরী না করে প্রিয়জনকে জানিয়ে দিন আপনার মনের কথা। দেখবেন সেও হয়তো অপেক্ষা করছে, আপনার মুখে ভালোবাসার কথাটি শোনার জন্য। আপনি ইচ্ছা করলেই কিন্ত সম্পর্কে ভালোবাসার ব্যাপক উপস্থিতি আনতে পারবেন। তাই সবসময় যাকে ভালোবাসি বলেছেন তার সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখুন, দুজন একে অপরকে বোঝার চেষ্টা করুন। বিপদে আপদে পাশে থাকুন।

বিয়ে সংক্রান্ত যেকোনো তথ্য, সেবা, এবং পরামর্শ পেতে যোগাযোগ করুন তাসলিমা ম্যারেজ মিডিয়ার সাথে।
কল করুনঃ+880-1972-006691 অথবা +88-01782-006615 এ।
আমাদের মেইল করুন taslima55bd@gmail.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here