আমাদের দেশের সংসার জীবনে সমস্যাগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি সমস্যা হলো বউ ও শ্বাশুড়ির মধ্যে মিল না থাকা। বলতে গেলে এক প্রকার যুদ্ধই বলা চলে। কিন্তু কেন, যেখানে বউ ও শ্বাশুড়ির মধ্যে সম্পর্ক থাকা দরকার মা-মেয়ের মতো সেখানে যুদ্ধ কেন?

এই যুদ্ধের কারণেই আজকের সমাজে যৌথ পরিবারের চেয়ে একক পরিবারের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। অনেক ছেলেরা মায়ের কথার উপর ভর করে বউয়ের উপর নির্যাতন চালায় আবার অনেক স্বামীরা তার বউয়ের কথায় মায়ের সাথে খারাপ ব্যবহার করে। এগুলো কখনও একটি সংসারে সুখ শান্তি এনে দিতে পারে না।

অথচ একটু সবকিছু মেইনটেন করলে এ ধরনের সমস্যাগুলো এড়ানো সম্ভব। এতে ঘরের বউকেই বেশি ভূমিকা পালন করতে হবে। ভালোবাসা দিয়ে বিভিন্নভাবে শ্বাশুড়ির মায়ের মন জয় করতে হবে। আসুন জেনে নিই, একজন আদর্শ পুত্রবধু হিসেবে কিভাবে শ্বাশুড়ি মায়ের মন জয় করা সম্ভব-

* সুন্দর করে সম্বোধন করুন

সবচেয়ে ভালো হয় যদি আপনার শ্বাশুড়িকে মা অথবা আম্মু বলে সম্বোধন করতে পারেন। মায়েরা স্বাভাবিক ভাবেই এ দুটো ডাক বেশি পছন্দ করে। আর যদি একান্তই এভাবে সম্বোধন করতে ইচ্ছে না হয় তাহলে সুন্দর কোনো আদুরে ও মধুর নামে ডাকতে পারেন। এতে করে আপনার শ্বাশুড়ি খুশিই হবেন।

আদর্শ জীবনসঙ্গী খুঁজতে

* শ্বাশুড়ির কাজে সাহায্য করুন

প্রত্যেকটা শ্বাশুড়ি চায় ছেলেকে বিয়ে করানোর পর নিজে একটু রেস্ট নিবেন। তাই সে যখন কোনো কাজ করবে তখন হাত গুটিয়ে বসে না থেকে শ্বাশুড়ির কাজে সাহায্য করবেন। মাঝেমধ্যে তাকে রেস্ট নিতে বলে তার কাজগুলোও নিজে করার চেষ্টা করবেন। তার কাপড়চোপড়, বিছানা ও ঘর গুছিয়ে দিবেন।

* শ্বাশুড়ির সেবা যত্ন করুন

শ্বাশুড়ির মন জয় করতে হলে অবশ্যই তার সেবা যত্ন করতে হবে। তিনি অসুস্থ হলে বাসার যাবতীয় কাজ নিজেই সেরে ফেলবেন। তাকে নিয়মিত খাবার ও ঔষধ খাওয়াবেন। তার যেন কোনো ভাবেই কোনো সমস্যা না হয় সেদিকে খেয়াল রাখবেন। অসুস্থতার সময়ে তার যা খেতে মন চায় তা রান্না করে দিবেন।

* শ্বাশুড়ির সাথে সময় কাটান

বিয়ের পর পুরো সময়টা শুধু স্বামীকে নয়, স্বামীর পরিবারের বাকি সদস্যদের দেওয়ার চেষ্টা করবেন। বিশেষ করে শ্বাশুড়িকে। অবসর সময়গুলোতে একসাথে বসে টিভি দেখতে পারেন, গল্প করতে পারেন। মাধেমধ্যে গল্প করতে করতে তার চুলে তেল মালিশ করে দিন। সুযোগ পেলে তাকে নিয় বাহিরে ঘুরতে যান। তার মন ভালো থাকবে।

* শ্বাশুড়িকে উপহার দিন

বিশেষ বিশেষ দিনগুলোতে শুধু স্বামীকে নয়, তার পাশাপাশি শ্বাশুড়ি মায়ের জন্যও উপহার কিনুন, দেখবেন সে খুব খুশি হবে। বাহিরে গেলে তার জন্য তার পছন্দের জিনিস বা খাবার নিয়ে আসতে পারেন।

* সবসময় সম্মান করুন

একসাথে থাকতে গেলে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন। তাই বলে তার সাথে মনোমালিণ্য বা তাকে কটু কথা বলা যাবে না। শ্বাশুড়ির বদনাম কখনই তার ছেলের কাছে বলা যাবে না। কোনো সমস্যা হলে তার সমাধান নিজেদের মধ্যেই করে ফেলতে হবে। কোনো ভাবে যেন তার প্রতি অসম্মান না করা হয়।

বিয়ে সংক্রান্ত যেকোনো তথ্য, সেবা, এবং পরামর্শ পেতে যোগাযোগ করুন তাসলিমা ম্যারেজ মিডিয়ার সাথে।
কল করুনঃ+880-1972-006691 অথবা +88-01782-006615 এ।
আমাদের মেইল করুন taslima55bd@gmail.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here